নিজস্ব প্রতিনিধি->>
ফেনীতে বিজয় দিবস উদযাপনে জেলা প্রশাসনের দিনব্যাপী কর্মসূচি গ্রহণ করেছে।

জেলা প্রশাসক মোঃ ওয়াহিদুজ্জামান জানান, সোমবার সুর্যোদয়ের সাথে সাথে সকল সরকারি, আধা-সরকারি, সায়ত্বশাসিত এবং বেসরকারি ভবনে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হবে। এরপর সকাল সাড়ে ৬ টায় জেলা পুলিশ লাইন্সে ৩১ বার তোপধ্বনি ও জেল রোডে মুক্তিযুদ্ধ স্মৃতিস্তম্ভে পুষ্পস্তবক অর্পণের মাধ্যমে শুরু হবে বিজয় দিবসের আনুষ্ঠানিক কর্মসূচি। সকাল সাড়ে ৮টায় ভাষা শহীদ আবদুস সালাম স্টেডিয়ামে আনুষ্ঠানিকভাবে জাতীয় পতাকা উত্তোলন ও কুচকাওয়াজ, শরীরচর্চা প্রদর্শনী অনুষ্ঠিত হবে। এরপর সকাল ১১টায় জেলা শিল্পকলা একাডেমীতে বীর মুক্তিযোদ্ধা ও শহীদ পরিবারের সদস্যদের সংবর্ধনা প্রদান করা হবে।

সকাল সাড়ে ১১টায় ফেনী সরকারি বালিকা বিদ্যালয়ে জেলা পর্যায়ে মহিলাদের অংশগ্রহণে মুক্তিযুদ্ধ ভিত্তিক আলোচনা সভা ও ক্রীড়া প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হবে। দুপুরে সরকারি হাসপাতাল, কারাগার, এতিমখানা, শিশু পরিবার ও ভবঘুরে প্রতিষ্ঠানসমূহে উন্নতমানের খাবার পরিবেশন করা হবে। এরপর দুপুর দেড়টায় প্রতিটি মসজিদ, মন্দির ও ধর্মীয় উপাসনালয়ে সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ বিরোধী কার্যক্রমের বিরুদ্ধে জনমত সৃষ্টিতে আলোচনা ও জাতির শান্তি সমৃদ্ধি অগ্রগতি কামনা করে এবং মুক্তিযুদ্ধে সকল শহীদদের জন্য মোনাজাত/ বিশেষ প্রার্থনা করা হবে। বিকাল ৩ টায় ভাষা শহীদ আবদুস সালাম স্টেডিয়ামে প্রদর্শনী ফুটবল প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হবে। এরপর সন্ধ্যা সাড়ে ৫টায় জেলা শিল্পকলা একাডেমীতে সুখী সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে ডিজিটাল প্রযুক্তির ব্যবহার ও মুক্তিযুদ্ধ শীর্ষক আলোচনা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও পুরস্কার বিতরণ করা হবে।

এছাড়া ১৫ ডিসেম্বর সন্ধ্যা হতে ১৬ ডিসেম্বর রাত ১২টা পর্যন্ত গুরুত্বপূর্ন সরকারী, আধা-সরকারী, স্বায়ত্ব শাসিত এবং বেসরকারী ভবন সমূহে আলোকসজ্জা করা হবে। এছাড়াও রয়েছে শহরের প্রধান প্রধান সড়ক ও সড়কদ্বীপ সমূহে জাতীয় পতাকা ও বিভিন্ন রঙ্গিন পতাকা দ্বারা সজ্জিত করা হবে। এর আগে ১৫ ডিসেম্বর সকাল ১০টায় জেলা পরিষদে শিশুদের অংশগ্রহণে মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক চিত্রাংকন প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হবে।

এর আগে গত ১২ নভেম্বর মহান বিজয় দিবস উপযাপন উপলক্ষ্যে জেলা প্রশাসক মোঃ ওয়াহিদুজজামানের সভাপতিত্বে প্রস্তুতি সভা অনুষ্ঠিত হয়। সোমবার ১৬ ডিসেম্বর মহান বিজয় দিবস যথাযোগ্য মর্যাদায় উদযাপনের লক্ষ্যে জেলা প্রশাসক মোঃ ওয়াহিদুজ্জামানকে আহ্বায়ক করে ৬১ সদস্য বিশিষ্ট আহ্বায়ক কমিটি গঠন করা হয়েছে। এছাড়া বিজয় দিবস সফল ও স্বার্থক করে তুলতে ১৩টি উপকমিটি কাজ করছে।

যথাযোগ্য মর্যাদা ও উৎসবমুখর পরিবেশে বর্ণাঢ্য আয়োজনের মাধ্যমে দিবসটি উদযাপনের লক্ষ্যে সকলের সক্রিয় অংশগ্রহণ ও সহযোগিতা কামনা করেছেন জেলা প্রশাসক।

Sharing is caring!