শহর প্রতিনিধি->>
ফেনীর খোলাবাজারে ন্যায্যমূল্যে পেঁয়াজ বিক্রি শুরু করেছে রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন প্রতিষ্ঠান ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশ (টিসিবি)। টিসিবির এক কেজি পেঁয়াজ কেনার জন্য ফেনী শহীদ মিনার ও জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সামনে ঢল নেমেছে ক্রেতাদের। দীর্ঘ ২ থেকে ৩ ঘণ্টা রোদের মধ্যে লাইনে দাঁড়িয়ে এক কেজি পেঁয়াজ কিনতে পারছেন ক্রেতারা। ক্রেতাদের অভিযোগ এক কেজি পেয়াঁজের অর্ধেকই নষ্ট ও পচা।

পেঁয়াজ কিনতে আসা আবদুল মান্নান নামে এক ক্রেতা বলেন, ‘দীর্ঘক্ষণ লাইনে দাঁড়িয়ে এক কেজি পেঁয়াজ পেয়েছি, কিন্তু পলিথিন খুলে দেখি অর্ধেকের মত পেঁয়াজ পচা

কুলসুম বেগম এক নারী জানান, এক কেজি পেঁয়াজের মধ্যে বড় সাইজের তিনটা পেঁয়াজই পচা দেওয়া হয়, তাহলে কোথায় যাবো আমরা’। ।

ক্রেতাদের অভিযোগ পচা-নষ্ট পেয়াজের ব্যাপারে জানতে চাইলে টিসিবির ডিলার মেসার্স বাবু ডিপার্টমেন্টাল স্টোরের সত্ত্বাধিকারী হুমায়ন কবীর বলেন, ‘এ ধরনের অভিযোগ পুরোপুরি সত্য নয়, দু’একটা পেঁয়াজ নষ্ট হতে পারে। এক কেজির মধ্যে অর্ধেকই নষ্ট এমন তথ্য ঠিক নয়।

সোমবার (২ ডিসেম্বর) সকালে টিসিবির পেঁয়াজ বিক্রির কার্যক্রম উদ্বোধন করেন জেলা প্রশাসক মো. ওয়াহিদুজ্জমান। এ সময় উপস্থিত ছিলেন জেলা পুলিশ সুপার খোন্দকার নুরুন্নবী। ১০টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত ট্রাকে পেঁয়াজ বিক্রি করা হয়।

৪৫ টাকা দরে পেঁয়াজ কেনার জন্য সকাল থেকে জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের প্রশাসনিক ভবনের সামনে লাইনে দাঁড়ায় ক্রেতারা । জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সামনে ছাড়াও শহরের ট্রাংক রোড়ের শহীদ মিনারের সামনে দীর্ঘ লাইনে দাঁড়িয়ে টিসিবির পেঁয়াজ কিনে ক্রেতারা।

টিসিবির ডিলার মেসার্স বাবু ডিপার্টমেন্টাল স্টোরের সত্ত্বাধিকারী হুমায়ন কবীর বলেন, সকাল ১০টা থেকে আমরা পেঁয়াজ বিক্রি শুরু করেছি। একজন ক্রেতা ১ কেজি করে পেঁয়াজ কিনতে পারছেন। আমরা আটদিনের জন্য আট টন পেঁয়াজ বরাদ্দ পেয়েছি।

ফেনী জেলা প্রশাসক ওয়াহিদুজ্জামান জানান, মানুষ শান্তিপূর্ণ পরিবেশে টিসিবির পেঁয়াজ কিনছেন। টিসিবির পেঁয়াজ আরও বরাদ্দ বাড়ানোর জন্য আমরা চেষ্টা করবো।

Sharing is caring!