শহর প্রতিনিধি->>
ফেনী শহরে পৌরসভার দ্বিতীয় দিনের মতো পরির্দশনে ৮ হাসপাতাল-ডায়াগনস্টিক সেন্টারকে সতর্ক করা হেয়েছে। অভিযানের খবর পেয়ে মুক্তা ডেন্টাল ক্লিনিকে তালাবদ্ধ করেছে মালিক পক্ষ। পারদিকে সেভরনে প্যাথলজি প্যাডে অগ্রিম স্বাক্ষর দেখে বিস্ময় প্রকাশ করেছেন পৌরসভার পরিদর্শন টিম।
জানাযায়, প্রাইভেট হাসপাতাল, ডায়াগনস্টিক সেন্টারের ড্রাগ লাইসেন্স, মূল্য তালিকা, ক্লিনিক্যাল বর্জ্য অপসারণ ব্যবস্থা এমনকি পরিস্কার-পরিচ্ছন্নতাসহ নানা অনিয়ম দেখতে দ্বিতীয়দিনের মতো মঙ্গলবার পরিদর্শনে নেমেছে পৌরসভার প্রতিনিধি দল।
এসময় প্রতিনিধি দল শহরের ট্রাংক রোডের সেভরন ক্লিনিকে গেলে অগ্রীম স্বাক্ষর করা অলিখিত প্যাথলজি প্যাড এর সন্ধান পায়। এসব প্যাডেই রোগীদের পরীক্ষা-নিরীক্ষার রিপোর্ট দেয়া হচ্ছে দেখে বিস্ময় প্রকাশ করেছেন পৌরসভার পরিদর্শন টিম।
এদিকে শহরের ট্রাংক রোডের জয়কালী মন্দির মার্কেটের তৃতীয় তলায় মুক্তা ডেন্টাল ক্লিনিকে অভিযান চালালে প্রতিষ্ঠানটির মালিক এস.কে সরকার মুক্তা ডেন্টাল ক্লিনিকে তালাবদ্ধ করে পালিয়ে যান। পরিদর্শনকালে সাইকা হেলথ কেয়ারকে অভিনন্দন জানান পৌরসভার প্রতিনিধি দল।
টিম প্রধান ও পৌরসভার ২নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর লুৎফুর রহমান খোকন হাজারী জানান, মঙ্গলবার দুপুরে পৌরসভার স্বাস্থ্য সেবা টিম হাসপাতাল-ক্লিনিক পরিদর্শনে বের হই। পরিদর্শনকালে সেভরনে ক্লিনিকের প্যাথলজি কক্ষে গিয়ে সাদা প্যাডে ডাক্তারের স্বাক্ষর আগাম রাখা হয়েছে। তবে ডাক্তারকে পাওয়া যায়নি। এছাড়া ক্লিনিকের অভ্যর্থনা কক্ষে টাঙানো হাসপাতাল ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার ওনার্স এসোসিয়েশনের মূল্য তালিকার চেয়ে স্বাস্থ্য সেবার জন্য বাড়তি টাকা আদায় করা হয়। একইভাবে ডেঙ্গু পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য অধিক টাকা আদায় করা হয়। এজন্য কর্তৃপক্ষকে পৌরসভার পক্ষ থেকে সতর্ক করা হয়।

প্রতিনিধি দলে টিম প্রধান ২নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর লুৎফুর রহমান খোকন হাজারী ছাড়াও সদস্য সচিব মেডিকেল অফিসার ডা. কৃষ্ণপদ সাহা, ছাড়াও টিম সদস্য ১০নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মাহতাব উদ্দিন মুন্না, ৫নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর জয়নাল আবদীন লিটন, স্যানেটারি ইন্সপেক্টর কৃষ্ণময় বণিক, জেলা প্রাইভেট হাসপাতাল ডায়াগনস্টিক সেন্টার ওনার্স এসোসিয়েশনের সভাপতি হারুন অর রশিদ উপস্থিত ছিলেন।

পরিদর্শনকালে শহরের ট্রাংক রোডে সেনসিভ হাসপাতাল, সাইকা হেলথ কেয়ার সেন্টার, আল্টাপ্যাথ, মডার্ণ ডায়াগনষ্টিক সেন্টার, শতাব্দি ডায়াগনষ্টিক সেন্টার, শেভরণ ক্লিনিক, লাইফ কেয়ার ডায়াগনস্টিক সেন্টার, ভাইটাল-১, সুমন আরা ডেন্টাল পরিদর্শন করেন। ট্রেড লাইসেন্স, পরিবেশ, অগ্নিনির্বাপন ব্যবস্থা, বর্জ্য ব্যবস্থা ও ল্যাব পরিস্কার, প্যাথলজি টেকনেশিয়ান উপস্থিতি পাওয়ায় সন্তোষ প্রকাশ করে সাইকা হেলথ কেয়ারকে অভিন্দন জানিয়েছে। প্রতিষ্ঠানটিকে পৌরসভার পক্ষ থেকে অভিনন্দনপত্র দেয়ার ঘোষনা দেন তারা।
এছাড়া অন্য প্রতিষ্ঠানগুলোতে অগ্নিনির্বাপন ব্যবস্থা, ক্লিনিক্যাল বর্জ্য ব্যবস্থাপনা সঠিক না থাকা ও লাইসেন্স নবায়ন না করা ও অতিরিক্ত টাকা আদায় করায় অপর একটি হাসপাতাল, ৬টি ডায়গনস্টিক ও ২টি ডেন্টালকে সর্তক করা হয়।
কমিটির আহবায়ক ও পৌরসভার কাউন্সিলর লুৎফুর রহমান খোকন হাজারী ফেনীর সময় কে জানান, জনসাধারণের স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিত করতে পৌরসভার অভিযান অব্যাহত থাকবে।

Sharing is caring!