শহর প্রতিনিধি->>

ফেনীতে বিএনপির কর্মসূচীতে হামলা ও নেতাদের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলায় গ্রেপ্তারের প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন করেছে বিএনপি। রোববার দুপুরে শহরের ইসলামপুর রোডস্থ জেলা বিএনপি’র অস্থায়ী কার্যালয়ে এ সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন জেলা বিএনপি’র আহ্বায়ক শেখ ফরিদ বাহার।

লিখিত বক্তব্যে শেখ ফরিদ বাহার অভিযোগ করে বলেন, ২০২৩ সালের জাতীয় নির্বাচনকে সামনে রেখে সারা ফেনী জেলাকে বিএনপি নেতা-কর্মীশূন্য করতে চায় আওয়ামী লীগ। এজন্য গত ৪ মে ঈদের পরদিন ফেনী-২ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য ও বিএনপি’র চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা জয়নাল আবেদিন (ভিপি জয়নালের) বাসভবনে সরকার দলীয় নেতা-কর্মীরা হামলা ও ভাঙচুর চালায়।এসময় তারা ঈদ শুভেচ্ছা বিনিময় করতে আসা বিএনপির নেতাকর্মীদের মারধরসহ পুলিশ কতৃক মিথ্যা মামলায় কারাগারে পাঠানোর অভিযোগ করেন তিনি। এসব বিষয় প্রশাসনকে অবহিত করেও কোনো প্রতিকার পাইনি বলে জানান জেলা বিএনপি নেতারা।

সংবাদ সম্মেলনে আরো অভিযোগ করে বলেন, এরআগে জেলার বিভিন্ন ইউনিয়নে বিএনপি আয়োজিত ইফতার মাহফিলে হামলা করে ইফতার সামগ্রী লুট করে নেয়া এবং প্যান্ডেল ভাঙচুর চালিয়েছে সরকারদলীয়রা। এসব বিষয়ে অভিযোগ দিলে পুলিশ মামলা নেয়নি বরং তাদের বিভিন্ন ভাবে হয়রানী করছে।

সাম্প্রতিক সময়ে পৌর যুবদলের আহবায়ক জাহিদ হোসেন বাবলু, যুবদলের সহ-সম্পাদক টিপু সুলতান, যুবদল নেতা মঈনুদ্দিন মায়াকে ধরে নিয়ে বেধড়ক মারধর করে পুলিশে সোপর্দ করে পরে তাদেরও পুলিশ মিথ্যা মামলায় কোর্টে চালান করে এবং জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি সাইদুর রহমান জুয়েলের অফিসে তালা ঝুলিয়ে অফিস বন্ধ করে দেয় সরকার দলীয় নেতা-কর্মীরা।

বাহার বলেন, ২০১৮ সালের জাতীয় নির্বাচনের মতো ২০২৩ সালে আরেকটি রঙ তামাশার নির্বাচন করতে চায় এই সরকার এজন্য তারা পুরো জেলাকে বিএনপি নেতা নেতা-কর্মীশূন্য করতে চায়।

সংবাদ সম্মেলনে জেলা বিএনপির সদস্য সচিব আলাল উদ্দিন আলাল, যুগ্ম আহবায়ক এমএ খালেক, এয়াকুব নবী, আলাউদ্দিন গঠন, সদস্য জয়নাল আবেদীন বাবলু, সাইফুর রহমান রতন, ফেনী পৌর বিএনপি আহবায়ক দেলোয়ার হোসেন বাবুল, যুগ্ম আহবায়ক খোরশেদ আলম ভূঞা, জেলা যুবদল নেতা সেলিম প্রমূখ উপস্থিত ছিলেন ।