পরশুরাম প্রতিনিধি->>

পরশুরামে বোরো ধানের বাম্পার ফলন হলেও চিন্তিত কৃষকেরা। তাঁদের জীবনে নতুন ধান আনন্দের পরিবর্তে বিষাদ ডেকে এনেছে। কারণ এ উপজেলায় চরম শ্রমিক সংকট দেখা দিয়েছে। শ্রমিক সংকটের কারণে সময়মতো ধান কাটতে পারছেন না অনেক কৃষক। শুধু তাই নয়, এক মণ ধানের দামেও মিলছে না একজন শ্রমিকও। এতে চরম ভোগান্তিতে পড়তে হচ্ছে স্থানীয় কয়েক হাজার কৃষকদের।

সরেজমিনে বাজারে গিয়ে দেখা গেছে, চরম শ্রমিক সংকটে যে কয়জন আছেন তাঁরা ধান কাটতে ১ হাজার ২০০ করে টাকা চাচ্ছেন। কিন্তু পরশুরাম উপজেলায় গত এক সপ্তাহ ধরে এক মণ ধান ৬৮০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। কিন্তু তার বিপরীতে একজন শ্রমিক ১ হাজার থেকে ১ হাজার ২০০ টাকা চাওয়ায় কৃষকেরা চরম লোকসানের কারণে দিশেহারা হয়ে পড়েছেন।

পরশুরাম পৌর এলাকার কৃষক নজরুল ইসলাম বলেন, বাজারে প্রতি মণ ধান বিক্রি হচ্ছে ৬৮০ থেকে সর্বোচ্চ ৭০০ টাকায়। কিন্তু শ্রমিকদের জনপ্রতি মজুরি দিতে হচ্ছে ১ হাজার থেকে ১ হাজার ২০০ টাকা। সঙ্গে দুই বেলা খাবার। এতে গৃহস্থদের শুধু ধান কাটাতেই চরম লোকসান গুনতে হচ্ছে। অন্যান্য খরচ যেমন জমি চাষ, সেচ, চারা, সার, কীটনাশক ও শ্রমিক খরচতো আছেই। এতে আমার ৪০ শতক জমিতে প্রায় ২-৩ হাজার টাকা করে লোকসান হচ্ছে।

ধান কাটা শ্রমিক কবির আহাম্মদ বলেন, ‘আমি আবুল খায়েরের সঙ্গে (মালিক) ধান কাটার জন্য দৈনিক ১ হাজার ২০০ টাকা করে পাঁচ দিনের জন্য চুক্তিবদ্ধ হয়েছি। দুপুরে-রাতে ভাত খাওয়া ও সকালের নাশতাও মালিক বহন করবেন।

পরশুরাম ডাকবাংলা মোড় এলাকার ধান ব্যবসায়ী আবদুল কাইয়ুম জানান, তিনি প্রতিমণ ধান ৬৮০ টাকা করে কিনছেন। ধানের চাহিদা না থাকায় দাম হঠাৎ কমে গেছে। এ ছাড়া শ্রমিক খরচও ওই টাকা থেকে বাদ যাবে।

উপজেলার মির্জানগর ইউনিয়নের সত্যনগর গ্রামে গিয়ে দেখা যায়, কৃষক আবুল কাশেম ৫-৬ জন শ্রমিক নিয়ে বোরো ধান কাটছেন। তিনি বলেন, ধান কাটা শ্রমিক পাওয়া খুব কষ্টের। পেলেও তাঁদের মজুরি উচ্চমূল্যের। শ্রমিকদের মাথাপিছু দেওয়া লাগছে ১ হাজার ২০০ টাকা। তারপর খাবার তো আছেই। তাই আগামী মৌসুমে আর বোরো চাষাবাদ করব না বলে সিদ্ধান্ত নিয়েছি।

পরশুরাম উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. মাসুদ রানা বলেন, পরশুরাম উপজেলায় চলতি বছর ৩ হাজার ৩৭০ হেক্টর জমিতে বোরো আবাদের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে। এবার বাম্পার ফলনও হয়েছে।

উপজেলার উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা দেব রঞ্জন বণিক বলেন, বোরো আবাদের জন্য সবকিছুই অনুকূলে ছিল। বিদ্যুৎ, পানি, সার, বীজ কোনো কিছুরই সমস্যা ছিল না। চলতি মৌসুমে ধানের ফলনও ভালো হয়েছে।

কৃষি কর্মকর্তা আরও বলেন, বোরো ধানের দাম কম থাকায় আমরা কৃষকদের ধান ভালোভাবে শুকিয়ে সংরক্ষণ করার পরামর্শ দিচ্ছি। যাতে করে তাঁরা সংরক্ষিত ধান পরে বিক্রি করে দামটা ভালো পান। একই সঙ্গে শ্রমিক সংকট থাকায় কম্বাইন্ড হারভেস্টর মেশিনে কৃষকদের সহজভাবে ধান কাটা, মাড়াই, বস্তা প্যাকেটজাতকরণের পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে।