imageশহর প্রতিনিধি->>
‘অস্ত্র চোরাকারবারী সংখ্যা ৪০৪’ শিরোনামে সম্প্রতি দু’টি জাতীয় দৈনিক পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশিত হলে ওই সংবাদে ফেনীর বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনের ৯জন নেতাকর্মীরা নাম থাকায় প্রতিবাদ জানিয়ে ফেনী জেলা বিএনপি সংবাদ সম্মেলন করেছে। বৃহস্পতিবার সকালে জেলা বিএনপি’র অস্থায়ী কার্যালয়ে (সাধারণ সম্পাদকের চালের আড়ঁদ) দলীয় কর্মীদের সাংবাদিক বানিয়ে দায়সারা সংবাদ সম্মেলন করা হয়।
সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক জিয়া উদ্দিন মিস্টার। এসময় জেলা বিএনপির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি অ্যাডভোকেট আবু তাহের, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মনোয়ার হোসেন দুলাল, সেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি সাঈদুর রহমান জুয়েলসহ যুবদল ও ছাত্রদলের একাংশের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।
সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত দৈনিক আমাদের সময় পত্রিকার ফেনী প্রতিনিধি আরিফুর রহমান জানান, সকাল সাড়ে ১০ টায় ফেনী জেলা বিএনপির সংবাদ সম্মেলন নির্ধারিত সময় ছিল। সকাল সাড়ে ১১ টা পর্যন্ত কোনো সাংবাদিক উপস্থিত না হওয়ায় আয়োজকরা বিব্রতকর অবস্থায় পড়েন। এক পর্যায়ে ইলেকট্রনিক্স মিডিয়ার দুই সাংবাদিককে কয়েকবার মুঠোফোনে ফোন করে উপস্থিত করে। পরে দলীয় নেতাকর্মীদের সাংবাদিকদের চেয়ারে বসিয়ে ‘ফেইসবুক সংবাদ সম্মেলন’ করেন।
ফেনী প্রেসক্লাবের নবনির্বাচিত সাধারণ সম্পাদক জমির উদ্দিন বেগ জানান, জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক জিয়া উদ্দিন মিস্টার’র একান্ত সহকারী ও মোটবি ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি ইসমাইল হোসেন বুধবার রাতে তাকে ফোন করে জেলা বিএনপির সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত হতে বলে। তিনি রাতে অন্যান্ন সাংবাদিকদের সাথে সংবাদ সম্মেলনের বিষয়টি আলাপ করলে কেউ দাওয়াত না পাওয়ায় তিনি সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত হননি।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক জেলা বিএনপির এক সিনিয়র নেতা বলেন, দলের সাধারণ সম্পাদক জিয়া উদ্দিন মিষ্টার অতীতে একাধিক সংবাদ সম্মেলন করে সাংবাদিকদের প্রশ্নে বিব্রতকর অবস্থায় পড়েছেন। এহেন পরিস্থিতি এড়াতে সকল সাংবাদিককে সংবাদ সম্মেলনে দাওয়াত দেয়নি। এছাড়া তিনি আরো বলেন, বর্তমান কমিটির সভাপতি-সম্পাদকের কোন সাংগঠনিক দক্ষতা নেই। তারা জেলা আওয়ামী লীগের সাথে আতাঁত করে সবসময় কেন্দ্র ঘোষিত দলীয় কর্মসূচী পালন করে আসছে। এমনকি কেন্দ্রীয় কর্মসূচীতে মাঠে না নেমে বিভিন্ন সড়কের অলি-গলিতে দাঁড়িয়ে ফটোসেশন করে নাম সর্বস্ব কর্মসূচী পালন করে চলছে।
ফেনী প্রেস ক্লাবের সভাপতি ও সময় টিভির ফেনী ব্যুরো প্রধান বখয়েতয়ার ইসলাম মুন্না, বর্তমান সাধারণ সম্পাদক ও বিটিভি’র প্রতিনিধি শওকত মাহমুদ, সহকারী সম্পাদক ও ইনডিপেনডেন্ট টিভির প্রতিনিধি নাজমুল হক শামীমসহ প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ায় কর্মরত অর্ধশতাধিক সাংবাদিক সংবাদ সম্মেলনের আমন্ত্রন পাননি।
প্রসঙ্গত, গত ৬ ডিসেম্বর দৈনিক যুগান্তর ও বাংলাদেশ প্রতিদিন পত্রিকায় অস্ত্র চোরাকারবারীদের নিয়ে সংবাদ প্রকাশিত হয়। ওই সংবাদে ফেনীর বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনের ৯ জন নেতা অস্ত্র চোরাকারবারির নাম উল্লেখ করা হয়।

Sharing is caring!