ডেস্ক রিপোর্ট->>

উন্নত জীবনের আসায় অনুন্নত বা উন্নয়নশীল দেশ থেকে উন্নত দেশের যাওয়ার প্রবণতা রয়েছে বিশ্বজুড়ে। এজন্য মানুষ জীবনের ঝুঁকি নিয়ে সাগর-নদী, পাহাড়-জঙ্গল অতিক্রম করে থাকে। বহু মানুষ পথে প্রাণ হারায় আবার কেউ কেউ গ্রেফতার হয়ে কারাগারে ভোগ করে।

কিন্তু এবার খুব সহজেই কানাডা যাওয়ার দ্বার উন্মুক্ত হয়েছে। কানাডা সরকার আগামী ৩ বছরে ৯ লাখ ৮০ হাজার অভিবাসী নেবে। ২০১৭ সালে কানাডা ঘোষণা করেছিল যে, দেশটি তিন ২০১৮, ২০১৯ ও ২০২০ সালে এই জনবল নেবে। সেই প্রক্রিয়া শুরু হতে যাচ্ছে শিগগিরই।

উত্তর আমেরিকার এই দেশটিকে বিশ্বের সবচেয়ে সুখী দেশ মনে করা হয়ে থাকে। দেশটিতে বর্তমানে ৩ কোটি ৭০ লাখের মতো মানুষ বসবাস করে। মাথাপিছু ইনকাম প্রায় ৫০ হাজার ডলার।

কানাডা সরকার আগামী এক বছরে ইকোনমিক প্রোগ্রাম মোট ১ লাখ ৯১ হাজার ৬০০ অভিবাসী নেবে। ইকোনমিক প্রোগ্রামের মধ্যে রয়েছে, ফেডারেল হাই স্কিলড প্রোগ্রামে ৮১,৪০০ জন, আটলান্টিক ইমিগ্রেশন পাইলট প্রোগ্রামে ২,০০০ জন, ফেয়ার গিভার প্রোগ্রামে ১৪,০০০ জন, ফেডারেল বিজনেস প্রোগ্রামে ৭০০ জন, প্রভিন্সিয়াল নমিনি প্রোগ্রামে ৬১,০০০ জন ও কুইবেক স্কিলড ওয়ার্কার অ্যান্ড বিজনেস প্রোগ্রামে ৩২,৫০০ জন।

ফ্যামিলি প্রোগ্রামের অধীনে নেয়া হবে ৮৮,৫০০ জন। ফ্যামিলি প্রোগ্রামের মধ্যে স্পাউজ, পার্টনার ও চিলড্রেন প্রোগ্রামে ৬৮,০০০ জন, প্যারেন্টস ও গ্রান্ড প্যারেন্টস ২০,৫০০ জন, রিফিউজি অ্যান্ড প্রোটেক্টেড পারসন প্রোগ্রামে ৪৫,৬৩০ জন, হিউম্যানিটেরিয়ান প্রোগ্রামে ৪,২৫০ জন।

কানাডার অভিবাসন মন্ত্রী আহমেদ হুসেন জানিয়েছেন, ২০২১ সালে দেশটি আরো ৩ লাখ ৫০ হাজার অভিবাসী নেয়ার চিন্তা করছেন।

সূত্র: কানাডার সরকারি ওয়েবসাইট ‘কানাডা ডট সিএ’।

Sharing is caring!